Ads By Blogger

Thursday, February 07, 2019

ব্লগস্পট ব্লগের মোবাইল ভার্সন থেকে Powered By Blogger রিমুভ করতে চান?

খুবই ভালো লাগছে যে, একটি কাজের ট্রিকস নিয়ে আজ আপনাদের সামনে হাজির হলাম। শিরোনাম দেখেই নিশ্চয়ই আগ্রহের মাত্রা বেড়ে গেছে? হ্যাঁ, আপনারা, আমরা সবাই ব্লগস্পট ব্লগের Attribution সম্পর্কে নিশ্চয়ই জানি? অর্থাৎ ব্লগস্পট ব্লগে Powered By Blogger লেখাটিকে Attribution বলা হয়। এই ক্রেডিট লিঙ্ক সবাই রিমুভ করতে পারেন সেটা জানি। কিন্তু অনেক ব্লগস্পট ব্লগ দেখেছি যারা এই Attribution টি ঠিকই রিমুভ করতে পেরেছেন কিন্তু পিসি থেকে এই লেখাটি দূর করতে পারলেও আপনি কিন্তু আপনার ব্লগের মোবাইল ভার্সন থেকে এটা তাড়াতে পারেন নি। আর সেই অসম্ভব কাজকে সম্ভব করব আমরা। যেমনঃ ব্লগার মারুফ ডট কম মোবাইল ভার্সন দেখুন, তাতে Powered By Blogger লিঙ্কটি নেই। এবার নিশ্চয়ই আপনার ধৈর্যের বাঁধ ভেঙ্গে যাচ্ছে? আর দেরি করব না। চলুন শিখে নেই ব্লগস্পট ব্লগের মোবাইল ভার্সন থেকে Powered By Blogger লিঙ্কটি রিমুভ করতে হয় কিভাবে।
  • ব্লগস্পট ড্যাশবোর্ড থেকে  Template > Edit HTML অপশনে যান।
  • টেমপ্লেটের কোডগুলো থেকে আগে খুঁজে দেখুন নিচের কোডটুকু আছে কিনা। যদি কোডটি খুঁজে পান তবে সেটি রিমুভ করে দিন আর না পেলে আরও ভালো কথা।
 <b:widget id='Attribution1' locked='true' title='' type='Attribution'/>
  • এবার আসি মূল কাজে। এবার </body> কোডটি খুঁজে বের করুন। আর কোডটির উপরেই বসিয়ে দিন নিচের কোডটুকু।
<div style='display:none;'> <b:section class='hiddenbar' id='hiddenbar' preferred='no'> <b:widget id='Attribution1' locked='true' mobile='no' title='' type='Attribution'/> </b:section> </div>
  • সবশেষে টেমপ্লেট সেভ করুন।
  • এখন আপনার ব্লগের মোবাইল ভার্সন ভিজিট করে দেখুন Attribution  টি রিমুভ হয়েছে কিনা।
আমি নিজের ব্লগে প্রয়োগ করেই আপনাদের সাথে শেয়ার করছি ট্রিকসটি। বুঝতে সমস্যা হলে অথবা কাজ না করলে জানাবেন কমেন্টে। সমাধান করার চেষ্টা করব ইনশাল্লাহ। আজকের মত এখানেই বিদায়। আল্লাহ হাফেজ। post by ভিসিটর টিউন ডট কম
Read More »

Tuesday, January 29, 2019

কিভাবে ট্রায়াল ভার্সন সফটওয়্যারগুলি আজীবন ব্যবহার করবেন

bd bangla blog এর পক্ষ থেকে সবাইকে শুভেচ্ছা জানিয়ে শুরু করছি আজকের এই পোস্ট।শুরু থেকে বিডি টিপস টেক আপনাদের সাথে নানা রকম টিপস উপহার দিয়ে আসছে।আজও আপনাদের সাথে দারুন একটি টিপ্স এন্ড ট্রিক্স নিয়ে হাজির হয়েছি।আজ আপনাদের দেখাবো কিভাবে যেকোনো ট্রায়াল ভার্সন সফটওয়্যার আজীবন ব্যবহার করবেন কোনো রকম ঝামেলা ছাড়া।তো চলুন কথা না বাড়িয়ে শুরু করি কিভাবে ট্রায়াল ভার্সন সফটওয়্যার আজীবন ব্যবহার কর‍তে হয়

সিরিয়াল ছাড়াই সফটওয়্যার ব্যবহার কিভাবে ট্রায়াল ভার্সন সফটওয়্যার আজীবন ব্যবহার করবেন পেইড সফটওয়্যার ব্যবহার করুন ফ্রিতে কিভাবে সিরিয়াল কি ছাড়াই সফটওয়্যার ব্যবহার করতে হয় বিডি বাংলা ব্লগ বিডি টেক সাইট ট্রিক বিডি বাংলা  bangla tech site bangla tech blog bd bangla blog


১. কাজটি করার জন্য সবার প্রথম আপানকে Time Stopper নামে একটি সফটঅয়্যার ডাউনলোড করতে হবে।Time Stopper ডাউনলোড করতে ক্লিক করুন
                Download time stopper bd tips tech

২. এর পর সফটওয়্যারটি ওপেন করেন, নিচের ছবির মত আসবে



ট্রায়াল ভার্সন সফটওয়্যারগুলি আজীবন ব্যবহার
ট্রায়াল ভার্সন সফটওয়্যারগুলি আজীবন ব্যবহার-১


৩. Browse বাটন ক্লিক করে ট্রায়াল ভার্সন সফটওয়্যারটি সিলেক্ট করুন



ট্রায়াল ভার্সন সফটওয়্যারগুলি আজীবন ব্যবহার bdtipstech
ট্রায়াল ভার্সন সফটওয়্যারগুলি আজীবন ব্যবহার-২


৪. Choose the new date থেকে আগামী কালকের তারিখ সিলেক্ট করুন


ট্রায়াল ভার্সন সফটওয়্যারগুলি আজীবন ব্যবহার trick bd
ট্রায়াল ভার্সন সফটওয়্যারগুলি আজীবন ব্যবহার-৩

৫. Enter a name for create desktop icon বক্সে সফটওয়্যারটির নাম দিন;
ট্রায়াল ভার্সন সফটওয়্যারগুলি আজীবন ব্যবহার-৪
ট্রায়াল ভার্সন সফটওয়্যারগুলি আজীবন ব্যবহার-৪


৬. Create desktop short-cut বাটনে ক্লিক করুন


ট্রায়াল ভার্সন সফটওয়্যারগুলি আজীবন ব্যবহার
ট্রায়াল ভার্সন সফটওয়্যারগুলি আজীবন ব্যবহার-৫


৭. ব্যাস, আপানার কাজ শেষ,ডেস্কটপ এ একটি shortcut তৈরি হবে। এখন থেকে সফটওয়্যারটি ওপেন করতে এই shortcut টি ব্যবহার করুন আর বিনামূল্যে সারাজীবন ব্যবহার করতে থাকেন trial software গুলো।
যেকোনো প্রয়োজনে আমরা আছি
আমাদের ফেইসবুক গ্রুপ facebook group
ফেইসবুক পেইজ facebook page
ইউটিউব চ্যানেল Youtube
Read More »

Tuesday, January 15, 2019

কম্পিউটার কেনার আগে যে বিষয়গুলি খেয়াল রাখতে হয়

বিডি টিপ্স টেকে আপনাদের স্বাগতম। একটি কম্পিউটার বর্তমান সময়ে একটি গুরুত্বপূর্ন অনুসঙ্গ । বর্তমান যুগ হলো তথ্য প্রযুক্তির যুগ । আর এ যুগের সাথে তাল মিলিয়ে চলতে গেলে তথ্য প্রযুক্তির সাথে তাল মেলানে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ বিষয় । আর ক্ষেত্রে এর প্রধান এবং একমাত্র বাহক হলো কম্পিউটার । আর এ কম্পিউটার কিনতে হলে একটু যাচাই বাছাই করা প্রয়োজন , কেননা একটুখানি ভুল হলে অনেক দাম দিয়ে কেনা একটি কম্পিউটার খুব তাড়াতাড়ি নষ্ট হয়ে যাবার সম্ভাবনা থাকে । তাই একটি কম্পিউটার কেনার সময়ে খেয়াল রাখতে হবে যেন— 
কম্পিউটার কেনার আগে যে বিষয়গুলি খেয়াল রাখতে হয়-বিডি টিপ্স টেক
কম্পিউটার কেনার আগে যে বিষয়গুলি খেয়াল রাখতে হয়-বিডি টিপ্স টেক
কম্পিউটারের দাম 2018 প্রসেসরের দাম ২০১৮ ডেস্কটপ কম্পিউটারের দাম ২০১৮ কম্পিউটার যন্ত্রাংশের দাম ২০১৮ কম্পিউটার কেনার টিপস কম্পিউটার যন্ত্রাংশের দাম 2018 পিসির দাম কম দামে কম্পিউটার কম্পিউটার কেনার আগে যা জানা প্রয়োজন ডেস্কটপ কম্পিউটারের দাম ২০১৮

১। পরিচিত দোকানঃ পরিচিত মানুষ সাধারণতঃ ধোকা দিতে পারে না । তাই কম্পিউটার কেনার আগে পরিচিত দোকান থেকে কিনলে ঠকার সম্ভাবনা খুব কম থাকে । পরিচিত মানুষ সাধারণতঃ ভালোটিই দিয়ে থাকে ।

 ২। কেসিং (Casing ) আগে দর্শনধারী পরে গুণাবিচারী । কোন জিনিস যদি দেখতেই ভালো না হয় , তবে সেটা ব্যবহার করতেও ভালো লাগার কথা নয় । তাই নতুন কম্পিউটার কেনার আগে ভালো মানের কেসিং আছে কি না প্রথমেই সেটা দেখে নেওয়া উচিত । 

৩। মাদার বোর্ড/ মেইন বোর্ড (Motherboard) : মাদার বোর্ড  কম্পিউটরের প্রধান চালিকা শক্তি । একটা কম্পিউটারের প্রধান নিয়ন্ত্রক বলতে আমরা এই মাদারবোর্ডকেই বুঝে থাকি । কারণ এই মাদার বোর্ডের উপরেই সকল উপাদান গুলো সন্নিবেশিত থাকে । বাজারে অনেক ধরনের মাদারবোর্ড পাওয়া যায় এর মধ্যে Intel, GigaByte, Asus খুব ভালো মানের মাদার বোর্ড ।

 ৪। মনিটর (Monitor ) মনিটর দ্বারা কম্পিউটারের সবকিছু আউটপুট পাওয়া যায়। তাই কম্পিউটারে মনিটরটি ভালো মানের হওয়া জরুরী ।

 ৫। র‍্যাম ( RAM): RAM হলো কম্পিউটারের অস্থায়ী স্মৃতি । RAM উপর একটি কম্পিউটারে মূল গতি নির্ভর করে । তাই একটি কম্পিউটারের RAM গতি যত বেশি হবে তার উপরই মুলত কম্পিউটারের সামগ্রিক গতি নির্ভর করে । বর্তমানে Corsair, G.Skill, Micron বেশ ভালো মানের RAM । 

৬। হার্ড ডিস্ক ড্রাইভ( Hard Disk Drive একটি হার্ডডিস্ক ড্রাইভের ভিতর সাধারণত চৌম্বকীয় পদ্ধতিতে ডেটা সংরক্ষিত থাকে । তাই হার্ডডিস্কের ডেটা ধারণ ক্ষমতা বেশি হলে কম্পিউটারে গতি বৃদ্ধি পায় । বাজারে সাধারণতঃ ১৬০ GB থেকে শুরু করে ৩ TB পর্যন্ত হার্ড ডিস্ক ড্রাইভ পাওয়া যায় ।

 ৭। সিডি/ ডিভিডি( CD /DVD ): সিডি/ডিভিডি প্লেয়ার সঠিকভাবে কাজ করছে কিনা সেটা দেখে নিতে হবে । তাছাড়া ভার্সনগুলোও যেন আপডেটেট ভার্সন হয় সেদেকে নজর রাখা জরুরী ।

 ৮। কী বোর্ড( Key Board ) কী বোর্ড খুব ভালো মানের না হলে কাজ করে কোন সুবিধা পাওয়া যায় না কারণ কী বোর্ড দিয়েই কম্পিটারের বেশিরভাগ কাজ সম্পন্ন করা হয় । তাই ভালো মানের কী বোর্ড কিছু ব্রান্ডের নাম হলো A4Tech, Deluxe, Mercury এছাড়াও মাউস( Mouse), স্পিকার( Speaker ), ইউপিএস( UPS) প্রভৃতি বিষয়গুলোও খুব সতর্কতার সাথে নজরে রাখতে হবে । 
যেকোনো প্রয়োজনে আমরা আছি
আমাদের ফেইসবুক গ্রুপ bd tech group
ফেইসবুক পেইজ bd tips tech
ইউটিউব চ্যানেল Youtube channel
Read More »

Monday, January 14, 2019

জিডি কেন করবেন এবং কিভাবে করতে হয়

বিডি টিপ্স টেকে আপনাকে স্বাগতম। জিডি কেন করবেন এবং কিভাবে করতে হয়।মনে করুন রহিম একজন ছাত্র। ঢাকা থেকে যশোর আসার পথে তার সকল একাডেমিক সার্টিফিকেট হারিয়ে গেছে। এখন সে তো মহা টেনশনে। কি করবে এখন!!! তার দীর্ঘ ২৫ বছরে পড়াশুনার প্রমাণ তো ঐ সার্টিফিকেটগুলোই । চিন্তায় চিন্তায় আধমরা অবস্থা তার! এই অবস্থায় একজন ভদ্রলোক এসে তাকে উপদেশ দিল সার্টিফিকেটগুলো বোর্ড থেকে উঠায়ে নেওয়ার জন্য। তবে সর্বপ্রথমে তাকে থানায় একটা জিডি করতে বললো। তো এই জিডি টা কি? আর কিভাবেই বা এটা করতে হয়? চলুন জেনে নেওয়া যাক - জিডি কি এবং কেন করবেন? জিডি শব্দটি জেনারেল ডায়েরি এর সংক্ষিপ্ত রুপ। কোনো অনাকাঙ্খিত ঘটনা ঘটলে বা কোনো মূল্যবান কিছু হারিয়ে গেলে সেটা লিখিত ভাবে থানায় জানাতে হয়। এরপর থানার ডিউটি অফিসার সেটি নথিভুক্ত করেন। এটাকেই জিডি বলা হয়। কিভাবে জিডি করতে হয়? জিডি করতে হলে আপনাকে আপনার নিকটস্থ থানায় যেতে হবে। এরপর ডিউটি অফিসার বরাবর একটা দরখাস্ত লিখতে হবে। 
জিডি কেন করবেন এবং কিভাবে করতে হয়
জিডি কেন করবেন এবং কিভাবে করতে হয়
অনলাইনে জিডি করার নিয়ম জিডি কি মামলা  জিডি করবেন কীভাবে জিডি ও কিছু প্রয়োজনীয় তথ্য থানায় সাধারণ ডায়েরি কেন করবেন, কিভাবে জেনারেল ডায়েরি (জিডি) কী, কেন, কোথায় এবং কিভাবে করবেন

দরখাস্তের ফরমেট টা নিচের মত হবে। 

বরাবর,
 অফিসার ইনচার্জ, 
সদর দক্ষিন থানা, কুমিল্লা। 
বিষয় : সাধারণ ডায়েরি করণ প্রসঙ্গে। 
যথাবিহীত সম্মান প্রদর্শন পূর্বক বিনীত নিবেদন এই যে, আমি …………………, পিং-……………, সাং-…………, থানা-…………, জেলা-…………।অদ্য থানায় হাজির হইয়া আমি এই মর্মে জানাইতেছি যে, গত ইং ০৩/০১/২০১৯ তারিখ সকাল আনুমানিক ১০.০০ ঘটিকার সময় আমি বাড়ি হইতে কুমিল্লা শহরে আসার পথে কাছে থাকা নিজ নামীয় জাতীয় পরিচয় পত্র যাহার নং-19451258748458930 পথিমধ্যে কোথাও পড়িয়া হারাইয়া যায়। অনেক খোজাখুজি করিয়া উক্ত জাতীয় পরিচয় পত্রটির সন্ধান পাওয়া যায় নাই। খোজাখুজি অব্যাহত আছে। 
অতএব , মহোদয় উক্ত বিষয়টি আপনার থানায় সাধারণ ডায়েরি ভুক্ত করিতে একান্ত মর্জি হয়। 
বিনীত
নাম 
মোবাইল নাম্বার                                                                              স্বাক্ষর 


এরপর এটার একটা ফটোকপি সহ মোট ২ (দুই) কপি ডিউটি অফিসারকে দিলে তিনি সিল সই করে আপনাকে এককপি দিয়ে দেবেন আর তিনি এক কপি রেখে দেবেন। আপনার কাজ শেষ। 
যেকোনো প্রয়োজনে আমরা আছি
আমাদের ফেইসবুক গ্রুপ bd tech group
ফেইসবুক পেইজ bd tips tech
ইউটিউব চ্যানেল Youtube channel
Read More »

Friday, January 11, 2019

কিভাবে WHATSAPP এর সকল তথ্য googGle Drive এ backup রাখবেন??

(bd tips tech) বিডি টিপ্স টেকে আপনাদের স্বাগতম।আপনি হয়তো আর সবার মতো নিয়মিত WhatsApp ব্যবহার করেন? কোন কারনে যদি আপনার এন্ড্রয়েড মোবাইল থেকে হোয়্যাটসএপ্স ডিলিট হয়ে যায় তাহলে থেকে তথ্য গুলি ফেরত পেতে পারেন।আজকে আপনাদের সাথে শেয়ার করবো কি করে WhatsApp এর সকল তথ্য আপনি গুগল ড্রাইভে সিঙ্ক্রনাইজ করে রাখবেন।



তো চলুন শুরু করা যাক-

* শুরুতে আপনার WhatsApp অ্যাপটি ওপেন করুন, এবার Menu Button থেকে Settings অপশনে তারপর Chats and calls যেয়ে Chat backup অপশনে ক্লিক কররুন।

এটিও পড়ুন কিভাবে sms এর মাধ্যমে sim number registration করবেন

* ঠিক কখন কখন ব্যাকআপ রাখতে চান সেটি নির্বাচন করুন এবং ব্যাকআপ টু গুগল ড্রাইভ সিলেক্ট করুন।



* ঠিক তারপরেই আপনাকে জিমেইল সিলেক্ট করার জন্য জিজ্ঞেসা করা হবে, সেটি করুন।

* এবার নেট কানেকশন নির্বাচন করে ব্যাকআপ করে নিন। এবং আপনার দেয়া সময় মতো গুগল নিজেই তারপর থেকে অটো ব্যাকআপ রাখবে।

*** এখন কথা হল আপনার ব্যাকআপ করা ফাইল বা ডাটা গুলা গুগল থেকে রিস্টোর করবেন কিভাবে?-

* আপনার ব্যবহৃত সেই একই ইমেইল আইডি পুরনায় অ্যাড করুন যেটা ব্যাকআপ রাখার সময় ব্যবহার করেছিলেন।

* এবার পুনরায় WhatsApp রিইন্সটল করুন। আপনার ফোন নাম্বার সঠিক ভাবে ভেরিফাই হবার পর তারা আপনার কাছে জিজ্ঞাসা করবে যে, আপনি পুনরায় ব্যাকআপ রিস্টোর করতে চান কিনা।

এটিও দেখুন কিছু GooGle টিপ্স জেনে নিন

* যদি করেন তবে তারপর কিছু সময় দিন। এবার দেখুন আপনার সকল ছবি, চ্যাট ম্যাসেজ, ইত্যাদি ডাটা রিস্টোর হয়ে গেছে।

নোটঃ বর্তমানে নতুন এই ফিচারটি শুধুমাত্র 2.12.303 তম ভার্সনে কাজ করছে। যাদের কাছে এই ভার্শনটি নেই তারা চাইলে গুগল প্লেস্টোর থেকে ডাউনলোড করে নিতে পারবেন।
Read More »

Thursday, January 03, 2019

খুব সহজে তৈরি করে নিন আপনার blog বা website এর জন্য android apps

bd tips tech এ আপনাদের সবাইকে স্বাগতম।অনেকদিন ধরেই ভাবছিলাম এই টিপ্সটা আপনাদের সাথে শেয়ার করবো। আপনি খুব সহজেই যেকোনো ওয়েবসাইটের এন্ড্রয়েড এপ্স বানিয়ে ফেলতে পারবেন।

প্রথমত আপনাকে এই সাইটে যেতে হবে-
তাহলে নিচের মতো একটা পেজ ওপেন হবে-
blog বা website এর জন্য android apps
blog বা website এর জন্য android apps
এটিও পড়ুন আপনার blog বা website থেকে আয় করুন খুব সহজে এবং advertising করুন ব্লগ বা ওয়েবসাইটের


খালি বক্সে আপনার কাংখিত সাইটের নাম লিখুন-
তারপর নেক্সটে ক্লিক করুন-
তারপর আপনার এপ্স এর নাম লিখুন-
তাহলে নিচের মতো পেজ চালু হবে-
blog বা website এর জন্য android apps
blog বা website এর জন্য android apps
একটা বড়-সড় বক্স দেখতে পাবেন, যেখানে কিছু হাবি-জাবি লেখা আছে। সেগুলো কেটে আপনার সাইটের ইনফো লিখুন।
তারপর আবার নেক্সটে চাপুন-
এখান থেক আপনার এপস্‌ এর আইকন সেট করে নিতে পারবেন-

blog বা website এর জন্য android apps
blog বা website এর জন্য android apps
এরপর নেক্সটে চাপুন, এবার Creat Apps এ ক্লিক করলেই আপনার কাংখিত এপস্‌ তৈরি হয়ে যাবে।

এটিও পড়ুন এবার format হবে memory card

এবার ডাউনলোড করে সবার সাথে শেয়ার করুন।আমাদের এন্ড্রয়েড এপ্স ডাউনলোড করুন এখান থেকে।
ধন্যবাদ সবাইকে !!
টিউটোরিয়ালটি ভালো লাগলে অবাশ্যই টিউমেন্ট করে জানাবেন??
আর সবার সাথে শেয়ার করতে ভুলবেননা।
Read More »

Tuesday, January 01, 2019

জেনে নিন আপনার জাতীয় পরিচয়পত্রের(NID CARD) নম্বরের গোপন সংকেত বা কোডের অর্থ

বিডি টিপ্স টেকে আপনাদের সবাইকে স্বাগতম। আশা করি ভালো আছেন।আমি আপনাদের মাঝে মজার একটি বিষয় নিয়ে হাজির হয়েছি।

বাংলাদেশী হিসাবে আমাদের অনেকেরই জাতীয় পরিচয় পত্র (National ID Card) আছে। অনেকে এটাকে ভোটার আইডি কার্ড হিসাবে বলেন যেটা সম্পুর্ণ ভুল।


এটিও পড়ুন facebook news feed হবে এবার নিজের মত

এটা ন্যাশনাল আইডি কার্ড বা জাতীয় পরিচয় পত্র।

আপনারা দেখবেন এটার নীচে লাল কালি দিয়ে লেখা ১৩ সংখ্যার একটা নম্বর আছে যাকে আমরা আইডি নম্বর হিসাবে জানি। কিন্তু এই ১৩ সংখ্যার মানে কি? আসলে আমরা অনেকেই এই সংকেত/কোডগুলো জানিনা। আবার অনেকের জানার আগ্রহ থাকলেও কোথাও হয়ত হেল্প পাইনি। যাইহোক এত চিন্তার কারন নাই। এবার উক্ত সমাধান নিয়েই আজকের পোস্ট। যারা জানেন না তারা নিজেই এবার চোখ বুলিয়ে নিন। আশা করি নিজে উপকৃত হবেন এবং অন্যকে জানানোর চেষ্টা করবেন।

বাংলাদেশী হিসাবে আমাদের অনেকেরই জাতীয় পরিচয় পত্র (National ID Card) আছে। অনেকে এটাকে ভোটার আইডি কার্ড হিসাবে বলেন যেটা সম্পুর্ণ ভুল। এটা ন্যাশনাল আইডি কার্ড বা জাতীয় পরিচয় পত্র।

আপনারা দেখবেন এটার নীচে লাল কালি দিয়ে লেখা ১৩ সংখ্যার একটা নম্বর আছে যাকে আমরা আইডি নম্বর হিসাবে জানি। কিন্তু এই ১৩ সংখ্যার মানে কি? আসলে আমরা অনেকেই এই সংকেত/কোডগুলো জানিনা। আবার অনেকের জানার আগ্রহ থাকলেও কোথাও হয়ত হেল্প পাইনি। যাইহোক এত চিন্তার কারন নাই। এবার উক্ত সমাধান নিয়েই আজকের পোস্ট। যারা জানেন না তারা নিজেই এবার চোখ বুলিয়ে নিন। আশা করি নিজে উপকৃত হবেন এবং অন্যকে জানানোর চেষ্টা করবেন।



১) এর প্রথম ২ সংখ্যা – জেলা কোড। ৬৪ জেলার আলাদা আলাদা কোড আছে। ঢাকার জন্য এই কোড ২৬।

২) পরবর্ত্তি ১ সংখ্যা – এটা আর এম ও (RMO) কোড।
সিটি কর্পোরেশনের জন্য – ৯
ক্যান্টনমেন্ট – ৫
পৌরসভা – ২
পল্লী এলাকা – ১
পৌরসভার বাইরে শহর এলাকা – ৩
অন্যান্য – ৪

৩) পরবর্ত্তি ২ সংখ্যা – এটা উপজেলা বা থানা কোড

৪) পরবর্ত্তি ২ সংখ্যা – এটা ইউনিয়ন (পল্লীর জন্য) বা ওয়ার্ড কোড (পৌরসভা বা সিটি কর্পোরেশনের জন্য)

৫) শেষ ৬ সংখ্যা – আই ডি কার্ড করার সময় আপনি যে ফর্ম পূরণ করেছিলেন এটা সেই ফর্ম নম্বর।
বর্তমানে আবার ১৭ ডিজিট ওয়ালা আইডি কার্ড দেয়া হচ্ছে যার প্রথম ৪ ডিজিট হচ্ছে জন্মসাল!

এটিও পড়ুন nokia mobile এর কিছু প্রয়োজনীয় কোড

আশা করি বুঝতে পেরেছেন।উপকৃত হলে কমেন্ট করে জানাবেন।ধন্যবাদ।
Read More »

Get post by Email

copyright 2014-2020@bdtipstech DMCA.com Protection Status